Showing posts with label Geography Practical IX. Show all posts
Showing posts with label Geography Practical IX. Show all posts

Map Pointing: Power Resource of West Bengal Class 9 Geography ||পশ্চিমবঙ্গের শক্তি সম্পদ মানচিত্র অনুশীলন নবম শ্রেণী || WBBSE

পশ্চিমবঙ্গের শক্তি সম্পদ : মানচিত্র অনুশীলন

ম্যাপ পয়েন্টিং ভূগোল বিষয়কে ভালোভাবে হাতে-কলমে শেখার একটি উল্লেখযোগ্য হাতিয়ার। এর দ্বারা আমরা ভূগোলের কোন স্থানের সঠিক অবস্থান সম্পর্কে জানতে পারি। পাশাপাশি ম্যাপ পয়েন্টিং এর অনুশীলনের মাধ্যমে খুব সহজে নম্বর তোলা যায়। আজকে আমরা আলোচনা করব পশ্চিমবঙ্গের শক্তি সম্পদের ম্যাপ পয়েন্টিং সম্পর্কে। প্রসঙ্গত বলে রাখি পরীক্ষার সময় পশ্চিমবঙ্গের বিভিন্ন জলবিদ্যুৎ ও তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র গুলি থেকে শুধু একটি মাত্র বিদ্যুৎ কেন্দ্র প্রদত্ত মানচিত্রে সঠিক সূচক ধারা চিহ্নিত করতে হবে।  

পশ্চিমবঙ্গের তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র

পশ্চিমবঙ্গের তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র গুলির মধ্যে উল্লেখযোগ্য হল ফারাক্কা, বক্রেশ্বর, সাগরদিঘী, দূর্গাপুর ও দূর্গাপুর স্টিলপ্লান্ট, সাঁওতালডিহী, মেঝিয়া, ব্যান্ডেল, টিটাগড় এবং কোলাঘাট। এদের মধ্যে সবথেকে বেশী পরীক্ষায় আসে ফারাক্কা । তবে এর পাশাপাশি  তোমাদের দূর্গাপুর, ব্যান্ডেল ও কোলাঘাট অবশ্যই অনুশীলন করতে হবে। সাঁওতাল ডিহী তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র টির অবস্থান এক নজরে দেখে রেখো।  

পশ্চিমবঙ্গের  জলবিদ্যুৎ কেন্দ্র

এবার আসি পশ্চিমবঙ্গের  জলবিদ্যুৎ কেন্দ্র গুলি সম্পর্কে । পশ্চিমবঙ্গের  জলবিদ্যুৎ কেন্দ্র গুলির মধ্যে উল্লেখযোগ্য হল তিস্তা, জলঢাকা, নেওরা, কুমাই ,মংপু ইত্যাদি। এদের মধ্যে জলঢাকা জলবিদ্যুৎ কেন্দ্রটি পরীক্ষায় ঘুরে ফিরে আসে। পাশাপাশি তিস্তা জলবিদ্যুৎ কেন্দ্রটিও খুব গুরুত্বপূর্ণ। প্রসঙ্গত বলে রাখি সিদ্রাপং জলবিদ্যুৎ কেন্দ্রটি পশ্চিমবঙ্গ তথা  ভারতের প্রথম জলবিদ্যুৎ কেন্দ্র। এটি পরীক্ষায় না আসলেও জেনে রাখা উচিত। পরবর্তীতে বিভিন্ন চাকুরীর পরীক্ষায় সাধারণ জ্ঞান হিসাবে আসতে পারে। 

আশা করি ওপরের মানচিত্রে দেখানো পশ্চিমবঙ্গের নদীগুলি অনুশীলনের মাধ্যমে তোমরা নিশ্চয়ই পরীক্ষায় ভালো নাম্বার তুলতে পারবে। মানচিত্র অনুশীলনের ক্ষেত্রে যদি কোন বোঝার অসুবিধা সৃষ্টি হয়, তোমরা নিঃসংকোচে কমেন্ট বক্সে সমস্যার কথা জানিও।


Share:

Map Pointing Physiography of West Bengal Class 10 || পশ্চিমবঙ্গের ভূপ্রকৃতি ম্যাপ পয়েন্টিং দশম শ্রেণী || WBBSE

পশ্চিমবঙ্গের ভূপ্রকৃতি 

ম্যাপ পয়েন্টিং ভূগোল বিষয়কে ভালোভাবে হাতে-কলমে শেখার একটি উল্লেখযোগ্য হাতিয়ার। এর দ্বারা আমরা ভূগোলের কোন স্থানের সঠিক অবস্থান সম্পর্কে জানতে পারি। পাশাপাশি ম্যাপ পয়েন্টিং এর অনুশীলনের মাধ্যমে খুব সহজে নম্বর তোলা যায়। আজকে আমরা আলোচনা করব পশ্চিমবঙ্গের ভূ- প্রাকৃতিক অঞ্চলের ম্যাপ পয়েন্টিং সম্পর্কে। প্রসঙ্গত বলে রাখি পরীক্ষার সময় পশ্চিমবঙ্গের ভূ- প্রাকৃতিক অঞ্চল গুলি থেকে থেকে শুধু একটি মাত্র অঞ্চল বা শৃঙ্গ প্রদত্ত মানচিত্রে সঠিক সূচক ধারা চিহ্নিত করতে হবে।


পশ্চিমবঙ্গের ভূ-প্রাকৃতিক অঞ্চলের মধ্যে সবথেকে গুরুত্বপূর্ণ হল সন্দরবন ও পশ্চিমের মালভূমি অঞ্চল। এই  মালভূমি ও সুন্দরবন ফিবছর পরীক্ষায় এসে থাকে । পাশাপাশি উপকূলীয় সমভূমি এবং তরাই ও ড্যার্স অঞ্চল আমাদের অনুশীলন করতে হবে। আরেকটি  গুরুত্বপূর্ণ ভূমিরূপ হল দার্জিলিং এর পার্বত্য ভূমি।  


উত্তরের সমভূমি পরীক্ষায় না এলেও তোমাদের তাল, বরেন্দ্রভূমি এবং দিয়ারা অঞ্চলের অবস্থান জানতে হবে। তবে গাঙ্গেয় সমভূমি অঞ্চল বা গাঙ্গেয় সমভূমি ( পশ্চিমবঙ্গের অংশ ) পরীক্ষায় মাঝে মধ্যে এসে থাকে। 


পশ্চিম বঙ্গের যে সকল পাহাড় পর্বত রয়েছে তাদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য শৃঙ্গ গুলি হল ফালুট, সান্দাকফু, বক্সাদুয়ার, গোর্গাবুরু এছাড়া বিহারীনাথ ও শুশুনিয়া পাহাড়। 


তবে, পশ্চিম বঙ্গের উচ্চতম শৃঙ্গ সান্দাকফু এবং পশ্চিমের মালভূমি অঞ্চলের উচ্চতম শৃঙ্গ গোর্গাবুরু পরীক্ষার জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। 

আশা করি ওপরের মানচিত্রে দেখানো পশ্চিমবঙ্গের পশ্চিমবঙ্গের ভূ- প্রাকৃতিক অঞ্চলের অনুশীলনের মাধ্যমে তোমরা নিশ্চয়ই পরীক্ষায় ভালো নাম্বার তুলতে পারবে। মানচিত্র অনুশীলনের ক্ষেত্রে যদি কোন বোঝার অসুবিধা সৃষ্টি হয়, তোমরা নিঃসংকোচে কমেন্ট বক্সে সমস্যার কথা জানিও।


Share:

Map Pointing River System of West Bengal Class 9 Geography ||পশ্চিমবঙ্গের নদনদী মানচিত্র অনুশীলন নবম শ্রেণী || WBBSE

পশ্চিমবঙ্গের নদনদী মানচিত্র অনুশীলন

ম্যাপ পয়েন্টিং ভূগোল বিষয়কে ভালোভাবে হাতে-কলমে শেখার একটি উল্লেখযোগ্য হাতিয়ার।  এর দ্বারা আমরা ভূগোলের  কোন স্থানের সঠিক অবস্থান সম্পর্কে জানতে পারি। পাশাপাশি ম্যাপ পয়েন্টিং এর  অনুশীলনের মাধ্যমে খুব সহজে নম্বর তোলা যায়। আজকে আমরা আলোচনা করব পশ্চিমবঙ্গের নদ-নদীর  ম্যাপ পয়েন্টিং সম্পর্কে। প্রসঙ্গত বলে রাখি পরীক্ষার সময় পশ্চিমবঙ্গের নদীগুলি থেকে শুধু একটি মাত্র নদী  প্রদত্ত মানচিত্রে সঠিক সূচক ধারা চিহ্নিত করতে হবে।

পশ্চিমবঙ্গের নদী গুলিকে ভালভাবে বোঝার জন্য আমরা তিনটি ভাগে ভাগ করতে পারি।  উত্তরবঙ্গের নদী গুলি হল তিস্তা,  মহানন্দা,  জলঢাকা,  তোর্সা,  কালজানি,  রায়ডাক এবং সংকোশ। তবে পরীক্ষায় মহানন্দা এবং তিস্তা নদী ফি বছর ঘুরেফিরে আসে। এদের পাশাপাশি আত্রাই ও পুনর্ভবা নদীটি উল্লেখযোগ্য।


পশ্চিমের মালভূমি অঞ্চল থেকে বৃষ্টির জলে পুষ্ট যে সকল নদীগুলি পূর্ব দিকে প্রবাহিত হয়ে ভাগীরথী নদী ও হুগলি নদীতে মিশেছে তাদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো ময়ূরাক্ষী, অজয়, দামোদর, দ্বারকেশ্বর, শিলাই বা শিলাবতী, কাসাই বা কংসাবতী, এছাড়া কেলেঘাই এবং সুবর্ণরেখা নদী উল্লেখযোগ্য। প্রসঙ্গত দ্বারকেশ্বর ও শিলাবতী নদীর মিলিত প্রবাহ রূপনারায়ন নামে পরিচিত। এই নদী গুলির মধ্যে অজয়,  দামোদর  এবং সুবর্ণরেখা পরীক্ষার জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ।



সবশেষে আসি ভাগীরথী নদীর মোহনা অঞ্চলে পূর্বদিকে সুন্দরবনের নদীগুলির  প্রসঙ্গে।  এই অঞ্চলের নদী গুলি জোয়ার ভাটা জলে পুষ্ট  অসংখ্য খাঁড়ি দ্বারা যুক্ত যাদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য নদী গুলি হল  সপ্তমুখী,  ঠাকুরান, মাতলা,  বিদ্যাধরী, রায়মঙ্গল, গোসাবা,  হাড়িয়াভাঙ্গা ইত্যাদি।  তবে  এই নদীগুলি খুব একটা পরীক্ষায় আসেনা।



আশা করি ওপরের মানচিত্রে দেখানো পশ্চিমবঙ্গের নদীগুলি অনুশীলনের মাধ্যমে তোমরা নিশ্চয়ই পরীক্ষায় ভালো নাম্বার তুলতে পারবে। মানচিত্র অনুশীলনের ক্ষেত্রে যদি কোন বোঝার অসুবিধা সৃষ্টি হয়, তোমরা নিঃসংকোচে কমেন্ট বক্সে সমস্যার কথা জানিও।




Share:

Popular Posts

Recent Posts

Total Pageviews