Showing posts with label Uncategorized. Show all posts
Showing posts with label Uncategorized. Show all posts

সুয়েজ খালপথ ও পানামা খালপথের পার্থক্য

সুয়েজ খালপথ ও পানামা খালপথের পার্থক্য


আন্তর্জাতিক বাণিজ্য  পথ হিসাবে পানামা খালপথ এবং সুয়েজ খালপথ অতি গুরুত্বপূর্ণ।  তবে এই খালপথ দুটির মধ্যে বেশকিছু সুস্পষ্ট কিছু পার্থক্য রয়েছে।  অর্থনৈতিক গুরুত্বের বিচারে  সুয়েজ খালপথ ও পানামা খালপথের  পার্থক্য  গুলি নিম্নরূপ - 


সুয়েজ খাল পথ

পানামা খাল পথ

১) সুয়েজ খাল পূর্ব গোলার্ধে অবস্থিত এবং ঊনবিংশ শতাব্দীতে এই খাল পথ চালু হয়। 

১) পানামা খাল পথ পশ্চিম গোলার্ধে অবস্থিত এবং বিংশ শতাব্দীতে এই খাল পথ চালু হয়। 

২)   সুয়েজ ক্যানাল  অথরিটি নামে একটি সংস্থার উপর সুয়েজ খাল পথের পরিচালনা ও রক্ষণাবেক্ষণের ভার দেওয়া আছে। 

২) পানামা খাল পথ পানামা রাষ্ট্রের অন্তর্গত হলেও চুক্তি অনুসারে এই খাল পথ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র নিয়ন্ত্রণ করে। 

৩) সুয়েজ খাল পথের দৈর্ঘ্য 116 কিমি,  প্রস্থ 56 মিটার  এবং গভীরতা প্রায় 10 মিটার। 

৩) পানামা খাল পথের দৈর্ঘ্য 80 কিমি,  প্রস্থ প্রায় 91 থেকে 300 মিটার এবং গভীরতা প্রায় 13 মিটার। 

৪) সুয়েজ খাল অতিক্রম করতে জাহাজ  গুলির প্রায় 12 ঘন্টা সময় লাগে। 

৪) পানামা খাল অতিক্রম করতে জাহাজ গুলির প্রায় 7 ঘন্টা সময় লাগে। 

৫) সুয়েজ খাল সমুদ্র সমতলে  অবস্থিত তাই লকগেট তৈরি করে জলতল নিয়ন্ত্রণ করতে হয়না। 

৫) পানামা খাল সমুদ্র সমতল থেকে 26 মিটার উঁচুতে অবস্থিত তাই 6  টি লকেট এর সাহায্যে  জলতল নিয়ন্ত্রণ করে  জাহাজ গুলোকে চলাচল করতে হয়। 

৬) সুয়েজ খাল পথের তীরবর্তী অঞ্চল জনবহুল এবং বিভিন্ন প্রকার প্রাকৃতিক সম্পদে  সমৃদ্ধ তাই এই পথে উভয় তীর বরাবর অসংখ্য বন্দর গড়ে উঠেছে। 

৬) পানামা খাল পথ সংলগ্ন অঞ্চল বিরল জনবসতিপূর্ণ তাই অর্থনৈতিক শ্রীবৃদ্ধি কম বলে খাল পথ মধ্যে বন্দরের সংখ্যা নগণ্য। 

৭) সুয়েজ খাল পথের শুল্ক হার যথেষ্ট বেশি। 

৭) পানামা খাল পথের শুল্ক হার তুলনামূলক অনেক কম। 

৮ ) সুয়েজ খাল দ্বারা পণ্য এবং যাত্রী উভয়ই পর্যাপ্ত হারে চলাচল করে। 

৮ ) পানামা খাল পথে  যাত্রী চলাচল তুলনামূলকভাবে কম। 

৯) খনিজ তেল সমৃদ্ধ মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলি  থেকে সারা বিশ্বে  বাণিজ্যিক আদান-প্রদান হয় বলে এই খাল পথের অর্থনৈতিক ও সামরিক গুরুত্ব বেশি। 

৯) পানামা খালের সামরিক ও অর্থনৈতিক গুরুত্ব তুলনামূলক কম। 

১০) সুয়েজ খাল প্রাচ্য-পাশ্চাত্যের মধ্যে একটি সেতুবন্ধন ঘটিয়েছে।  তাই এই খাল পথ বেশি ব্যবহার করে ইউরোপ ও এশিয়ার দেশ গুলি। 

১০) উত্তর ও দক্ষিণ আমেরিকা মহাদেশের উপকূলের যোগসুত্র প্রতিষ্ঠা করেছে পানামা খাল।  এই পথের ব্যবহার আমেরিকা যুক্তরাষ্ট্র এবং কানাডা বেশি করে থাকে। 

১১) আন্তর্জাতিক বাণিজ্যের আদান-প্রদান সুয়েজখালে বেশি ব্যবহৃত হয় ।

১১) আভ্যন্তরীণ বাণিজ্যিক আদান প্রদান পানামা খালের দ্বারা বেশি হয়। 



Share:

Popular Posts

Recent Posts

Total Pageviews